নখের যত্ন করার উপায় জেনে নিন

হাতের নখের দিকে সময়ে সময়ে নজর দেওয়া হলেও পায়ের নখ যেন পায়ের মতোই অবহেলায় রয়ে যায়।
বিশেষত যাদের নিত্যদিন বাইরে চলাচল করা প্রয়োজন হয়, তাদের ক্ষেত্রে পায়ের নখের যত্ন নেওয়া বেশি জরুরী। বাইরে থেকে ফিরেই পা ভালোভাবে ধুয়ে নেওয়ার সাথে নজর দিতে হবে পায়ের নখের দিকেও। বিশেষ করে বৃষ্টির দিনগুলোতে নখে কাদা লেগে যায়।

ধুলাবালি নখের ভেতর প্রবেশ করে প্রতিনিয়ত। দীর্ঘদিন পায়ের নখ অপরিষ্কার রাখা হলে নখে জীবাণু জমে ফাঙ্গাস হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এমনকি ক্ষেত্র বিশেষে নখ নষ্টও হয়ে যেতে পারে। তাই জেনে রাখা প্রয়োজন পায়ের নখের যত্নে কী করতে হবে।

১. পায়ের নখ ছোট রাখতে হবে। নেইলকাটার মেশিন দিয়ে সপ্তাহে অন্তত একদিন নখ কাটতে হবে। যদি নখ বড় হতে থাকে, তাহলে এর ভিতরে জীবাণু জমে নখ নষ্ট হয়ে যেতে পারে। এছাড়াও হাঁটতে গিয়ে নখে আঘাত পেলে নখ নষ্ট হয়ে যায় বা মরে যায়। নখ ছোট থাকলে নখে ব্যথা পাওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়।

২. প্রতিদিন জুতা বা ফ্লোর থেকে নখে ময়লা জমতে পারে। তাই প্রতিদিন গোসলের সময় ও ঘুমানোর পূর্বে নখ হালকাভাবে হলেও পরিষ্কার করতে হবে। একটি ছোট ব্রাশ ব্যবহার করতে হবে, যা নখের স্বল্প গভীরের ময়লা পরিষ্কার করতে পারবে, এতে জীবাণু জমবে না ও নখে ইনফেকশন হবেনা।

৩. নখ কাটার সময় আঙ্গুলের সাথে মিল রেখে কাটতে হবে, আঙুলের মাংসের নিচে যেন না আসে এবং নখের কোণাগুলো গোল আকৃতি হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। এতে নখ শক্ত থাকবে এবং কোনাগুলো ধারালো হবে না।

৪. নখ কাটার পরে নখের ধার কমাতে এমারি বোর্ড ব্যবহার করা হয়। এটি দিয়ে পায়ের নখ ঘষার সময় সামনের দিকে কোনার অংশ থেকে নমনীয়ভাবে ঘষতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে, এটি বেশি পুরনো ও ধারহীন যেন না হয়। এতে নখের আকার নষ্ট হয়ে যাবে।

৫. পায়ে পানি লাগলে বা পা ধোয়ার পর দ্রুত শুকাতে হবে। কারণ ভেজা থাকলে নখ নরম হয়ে যায়। এতে সহজেই ভেঙ্গে যেতে পারে।

৬. পা পরিষ্কারের পরে লোশন জাতীয় ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে। এছাড়াও পা শুষ্ক হয়ে আসলে বা নখে ব্যথাভাব হলে লোশন ম্যাসাজ করতে হবে।

৭ জুতার সাথে মোজা ব্যবহার করা হলে, বাসায় এসে মোজা ধুয়ে দিতে হবে। একই মোজা পরপর পরা উচিত নয়। এতে মোজায় জমে থাকা জীবাণু বারবার নখে জমতে থাকবে। নিয়মিত মোজা ধোয়ার জন্য পর্যাপ্ত সময় না থাকলে দুই-তিনটা মোজা রাখতে হবে।

৮. মাসে ২-৩ বার সময় করে একটি বড় পাত্রে বা বালতিতে গরম পানি নিয়ে কিছুক্ষণ পা চুবিয়ে বসে থাকতে পারেন। সাথে সামান্য শ্যাম্পু বা পরিষ্কারক লিকুইড মিশিয়ে নিতে পারেন। এতে জমে থাকা ময়লাগুলো চলে যাবে।

৯. লেবু নখ পরিষ্কারের এবং নখ সাদা রাখতে ও জীবাণু থেকে রক্ষার জন্য খুব কার্যকরী। টুকরো লেবু নিয়ে নখের উপর এর রস ঘষে কিছুক্ষণ পা রেখে ধুয়ে ফেলতে হবে।

আরও পড়ুন

রোগ প্রতিরোধক্ষমতা ঠিক রাখতে

পরিমিত পরিমাণ খাবার খেতে হবে
রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য অতিরিক্ত খাবার গ্রহণ করা থেকে বিরত থাকুন। একটি সুষম খাবার তালিকা তৈরি করুন। ভিটামিন, মিনারেল, কার্বোহাইড্রেট—সবকিছুর মধ্যে যেন একটা ভারসাম্য থাকে।

ভিটামিন ও প্রোটিনজাতীয় খাবার গ্রহণ করুন
প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় ভিটামিন ও প্রোটিনজাতীয় খাবার রাখুন। কিন্তু তা যেন পরিমাণে বেশি না হয়, সেদিকে নজর রাখুন। অতিরিক্ত ভিটামিন ও প্রোটিন খেলেই রোগ প্রতিরোধক্ষমতা হুট করে বেড়ে যাবে না; বরং হিতে বিপরীত ঘটবে। হঠাৎ শরীরে অতিরিক্ত ভিটামিন ও মিনারেল বৃদ্ধির ফলে অন্যান্য সমস্যার সৃষ্টি
হতে পারে।

দুগ্ধজাত খাবার খেতে হবে
দুগ্ধজাত খাবারগুলো বিজ্ঞানের ভাষায় প্রোবায়োটিকস হিসেবে পরিচিত। যেমন দই, ঘোল, ছানা ইত্যাদি। মানুষের পাকস্থলীতে যে আবরণ আছে, তার ভেতর বেশ কিছু উপকারী জীবাণু কার্যকরী হয়। পাকস্থলীতে উপকারী ব্যাকটেরিয়ার সংখ্যা কমলে সেখানে ক্যানসার বাসা বাঁধতে পারে। দুগ্ধজাত খাবারগুলো পাকস্থলীতে উপকারী জীবাণুকে বাঁচিয়ে রাখে। ভিটামিন ডির জন্য দিনের কিছুটা সময় শরীরে রোদ লাগাতে হবে। এটা খাদ্যাভ্যাস ও জীবনাচরণের সঙ্গে সম্পৃক্ত। যার শরীরের গঠন ভালো এবং সেখানে কোনো ঘাটতি থাকবে না, তার রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বেশি হবে। যেমন শিশুর জন্মের পর থেকে মায়ের বুকের দুধ খাওয়ালে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে।

নিয়মিত ডিম খেতে হবে
নিয়মিত ডিম খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন। সেদ্ধ, পোচ কিংবা ভাজা যেকোনোভাবেই ডিম খেতে পারেন। ডিম শরীরে শক্তি সঞ্চার করে এবং রোগের সঙ্গে লড়ার শক্তি জোগায়।

অতিরিক্ত কার্বোহাইড্রেট গ্রহণ থেকে বিরত থাকুন
অতিরিক্ত কার্বোহাইড্রেট গ্রহণ করা থেকে বিরত থাকুন। কেননা বেশি পরিমাণে কার্বোহাইড্রেট গ্রহণের ফলে সেটি শরীরের ভেতরে ঢোকার পর ফ্যাট বা চর্বিতে রূপান্তর ঘটে। তাই একজন সুস্থ মানুষের প্রতিদিন ৬০ শতাংশ কার্বোহাইড্রেট গ্রহণ করা উচিত এবং এর সঙ্গে ৩০ শতাংশ প্রোটিন ও ৫ শতাংশ চর্বিজাতীয় খাবার খাওয়া উচিত।

অতিরিক্ত চা-কফি গ্রহণ নয়
অতিমাত্রায় চা-কফি পান করা শরীরের জন্য ভালো নয়। চা-কফিতে এমন অনেক উপাদান থাকে, যার কোনোটি শরীরের জন্য ভালো ও কোনোটি খারাপ।

ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে
অতিরিক্ত ওজন নানা রোগের উৎস। আমেরিকান একটি পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, অতিরিক্ত ওজনের ফলেই বেশির ভাগ কোভিড আক্রান্ত রোগীর মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া অতিরিক্ত ওজন উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিসসহ আরও জটিল রোগের কারণ। তাই সব সময় ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখুন।

প্রতিদিন হালকা ব্যায়াম করতে হবে
প্রতিদিন সকালে ও বিকেলে হালকা ব্যায়াম করুন। ব্যায়াম করার আগে চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করে নিন। আমরা না জেনে অনেক সময় ভুল ব্যায়াম করি, অর্থাৎ আমাদের শরীর নিতে পারে না এমন অনেক ব্যায়াম করার ফলে উপকারের চেয়ে অপকারই বেশি হয়। তাই আপনার শরীর নিতে পারে এমন ব্যায়াম করুন। নিজের সক্ষমতার চেয়ে অধিক ব্যায়াম করা উল্টো শরীরের জন্য ক্ষতিকর।

শারীরিক পরিশ্রম করুন
রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বৃদ্ধির সঙ্গে শারীরিক পরিশ্রমের সম্পর্ক আছে। একজন মানুষ যখন শারীরিক পরিশ্রম করে, তখন শরীরের প্রতিটি অঙ্গপ্রত্যঙ্গ কাজ করে।
শরীরের মাংসপেশি এবং হৃদ্‌যন্ত্র অনেক কার্যকরী হয়। একই

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


fifty two − 47 =